আজ : রবিবার, ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং, ৮ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী, রাত ১২:০৪,

নোয়াখালী-১ আসনে আ.লীগে একাধিক, ভাবনাহীন বিএনপি

নোয়াখালী প্রতিনিধি: 

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিকটবর্তী। জেলার অন্যান্য সংসদীয় আসনের মতো ২৬৮নং নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী উপজেলার একাংশ) আসনের নির্বাচনী প্রস্তুতিও থেমে নেই।

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ক্রমাগত কর্মকাণ্ডে সরগরম হয়ে উঠেছে রাজনীতির মাঠ। সময় যতই ঘনিয়ে আসছে ততই রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা তৎপর হয়ে উঠছেন, চালিয়ে যাচ্ছেন গণসংযোগ। চলছে নির্বাচনের প্রস্তুতি। চলছে মনোনয়ন নিয়েও জল্পনা কল্পনা। গ্রাম-পাড়া, হাট-বাজার, হোটেল রেস্টুরেন্টের বিভিন্ন আড্ডায় শুরু হয়ে গেছে নির্বাচনী আলোচনা।

যদিও এ আসনে এখন পর্যন্ত বিএনপিতে একক সম্ভাব্য প্রার্থী থাকলেও আওয়ামী লীগে সম্ভাব্য প্রার্থী একাধিক। দলটি থেকে শেষ পর্যন্ত কাকে মনোনয়ন দেয়া হবে, তা নিয়ে এলাকার তৃণমূল নেতাকর্মী ও ভোটারদের মাঝে চলছে নানামুখী আলোচনা।

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার ৯টি ও সোনাইমুড়ী উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন এবং দুটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত নোয়াখালী-১ আসন। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৪৫ হাজার ৩৯ জন।

এ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ড ও সভা সমাবেশের মাধ্যমে এবং পোস্টার, ফেস্টুন টানিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা তাদের নিজ নিজ প্রার্থিতার কথা জানান দিচ্ছেন এলাকাবাসীকে।

মনোনয়ন প্রত্যাশী অনেক নেতা খোঁজ খবর নিচ্ছেন এলাকাবাসীর। বিশেষ করে দলীয় নেতাকর্মীদের। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়টি কেন্দ্রীয়ভাবে দোলাচলে থাকলেও দলের একাধিক প্রার্থী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ আসনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি ও জাসদ ইনুর সম্ভাব্য প্রার্থীরা আগামী নির্বাচনে বিজয়ের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে কাজ করছেন।

এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী, প্রার্থী এইচএম ইব্রাহিম, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী মো. জাহাঙ্গীর আলম, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি গোলাম কুদ্দুস ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আওয়ামী লীগ নেতা খন্দকার রুহুল আমিনের নাম শোনা যাচ্ছে। তবে শেষ পর্যন্ত কে মনোনয়ন পাচ্ছেন তা স্পষ্ট করে বলতে পারছে না দলের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা।

বিএনপি থেকে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট সালাহ উদ্দিন কামরানের নাম শোনা যাচ্ছে। জাতীয় পার্টি থেকে সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমানের নাম শোনা যাচ্ছে। জাসদ ইনু থেকে অধ্যাপক হারুন-অর-রশিদের নামও শোনা যাচ্ছে।

প্রার্থিতা পাবার দৌঁড়ে অনেক আগেই মাঠে যেমন নেমেছেন তেমনি কেন্দ্রীয়ভাবে চালাচ্ছেন মনোনয়নের জন্য লবিং। জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীরা যেমন প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন ঠিক তেমনি সাধারণ ভোটার ও দলীয় কর্মী সমর্থকরাও বসে নেই। তারা বর্তমান সংসদ সদস্যের কর্মকাণ্ড নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করতে শুরু করেছেন।

আলোচিত হচ্ছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নৈতিকতা, সততা, চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য। প্রতিশ্রুত কাজের অগ্রগতি এবং ভবিষ্যৎ প্রতিশ্রুতির নানান দিক। এবারের নির্বাচনকে ঘিরেও বিএনপির নেতাকর্মীরাও দলের হাইকমান্ডের নির্দেশের অপেক্ষায় আছেন।

অন্যদিকে অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও প্রার্থিতার ছড়াছড়ি আওয়ামী লীগে। এ আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয় প্রত্যাশীদের নাম কম দীর্ঘ নয়। এমনকি নির্বাচনকে মাথায় নিয়ে তাদের প্রচার প্রচারণাও চোখে পড়ার মতো।

নোয়াখালী-১ আসনটি মূলত বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। ১৯৭৩ সালে এ আসনে প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স (বিএলএফ) এর নোয়াখালী অঞ্চলের সমন্বয়ক মাহমুদুর রহমান বেলায়েত।

১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আবুল কালাম। ১৯৮৬ সালে আওয়ামী লীগ থেকে মাহমুদুর রহমান বেলায়েত। ১৯৮৮ সালে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান। ১৯৯১ সালে পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন কামরান সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

১৯৯৬ সালের (বিতর্কিত) ৬ষ্ঠ ও ১৯৯৬ সালে সপ্তম ও ২০০১ সালে অস্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০০৮ সালে অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমানের পরিবর্তে ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী এএইচ এম ইব্রাহিমকে ২৪ হাজার ৭২২ ভোটের ব্যবাধানে পরাজিত করেন। ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ভোট পান এক লাখ ৫ হাজার ৩৮০ ভোট।

২০১৪ সালে এ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য হন এএইচ এম ইব্রাহিম। টানা দুই মেয়াদে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকায় এ আসনে উল্লেখযোগ্য উন্নয়নমূলক কাজ হয়েছে। এতে আওয়ামী লীগের জনসমর্থনও বেড়েছে। মনোনয়ন নিয়ে গ্রুপিং থাকায় আগামী নির্বাচনে আসনটি ধরে রাখা দলটির জন্য চ্যালেঞ্জ হবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টরা।

জাতীয় সংসদের স্পিকার ও দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার আস্থাভাজন ড. শিরিন শারমীন চৌধুরীও এ আসনের একজন প্রভাবশালী প্রার্থী হতে পারেন। দলের সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে তার গ্রহণযোগ্যতা। কিন্তু তৃণমূলে এবং স্থানীয় রাজনীতিতে অনেকটাই অনুপস্থিত তিনি।

এ আসনের বর্তমান এমপি এইচএম ইব্রাহিম নিজের নির্বাচনী এলাকায় সময় দিচ্ছেন। নারী ভোটারদের নিয়ে উঠান বৈঠক ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে সহযোগিতা ও যোগাযোগ করছেন নিয়মিত। দল আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন দিলে জয়লাভ করবেন বলেও মনে করেন তার কর্মী সমর্থকরা। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুচ্ছের নামও শোনা যাচ্ছে।

এ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম। তিনি দশ বছর ধরে নিয়মিত এলাকায় যাতায়াত ও সভা-সমাবেশ করছেন। এলাকার উন্নয়নে তিনি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে অংশগ্রহণ করা ও ব্যক্তিগত দান-অনুদান এবং সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে আন্তঃসম্পর্ক তৈরি করে এলাকার উন্নয়নে কাজ করছেন। ইতোমধ্যে তিনি দলীয় কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ভালো অবস্থান তৈরি করেছেন বলে মনে করেন দলীয় নেতাকর্মীরা। দলীয় মনোনয়ন পেলে শেখ হাসিনাকে এ আসন উপহার দেবেন এমটাই মনে করেন তার কর্মী সমর্থকরা।

আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন চাইবেন জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য খন্দকার রুহুল আমিন। দুঃসময়ে তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগের পাশে ছিলেন। এলাকায় নেতা-কর্মীদের নানাভাবে সহযোগিতা করে দলের পাশে ছিলেন। তিনি সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা হিসেবেও রয়েছেন। তিনিও গণসংযোগে আছেন।

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মাঝে মনোমালিন্য ও গ্রুপিং থাকলেও দল মনোনীত ব্যক্তিকে ভোট দেবেন এবং বিজয়ী করে আনবেন এমটাই মনে করেন দলের নেতাকর্মীরা।

বিএনপির একক সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার এএমএম মাহবুব উদ্দিন খোকন। তিনি দলের নেতাকর্মীদের সংগঠিত করে রেখেছেন। তার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বিএনপি এবং সব অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী।

মোহাম্মদ আলাউদ্দিন/শুক্র-২য়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

নাঙ্গলকোট রাইটার্স এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

Share স্টাফ রির্পোটার: লেখক-সাহিত্যিকদের প্রিয় সংগঠন নাঙ্গলকোট রাইটার্স এসোসিয়েশনের উদ্যোগে লাকসাম পৌরশহরস্থ স্বদেশ রেস্তোরা মিলনায়তনে ইফতার মাহফিল ও দোয়ার আয়োজন অনুষ্ঠিত হলো ১ জুন শুক্রবার। সংগঠনের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসাইন মিয়াজীর প্রাণবন্ত উপস্থাপনায় ও সংগঠনের ...

চলেই গেল মুক্তামণি

Share রক্তনালিতে টিউমারে আক্রান্ত মুক্তামণি মারা গেছে। আজ বুধবার সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে বাবার কাছ থেকে পানি চেয়ে পানি পান করার পরই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে সে। সাতক্ষীরার কামারবাইশালের মুদির দোকানদার ইব্রাহিম হোসেনের দুই যমজ ...