আজ : মঙ্গলবার, ২রা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুলাই, ২০১৮ ইং, ২রা জিলক্বদ, ১৪৩৯ হিজরী, রাত ১২:৩০,

আগামীদিনের সাংবাদিকতা- মাহমুদুল হক ফয়েজ

journalism20160418113829মাহমুদুল হক ফয়েজ: পৃথিবী দ্রুত বদলে যাচ্ছে। পরিবর্তন হছে জলবায়ুর। সেই সাথে বদলে যাচ্ছে রাজনীতি, অর্থনীতি আর মানুষের স্বাভাবিক যাপিত জীবন। বদলে যাচ্ছে মানুষের চিন্তা রুচি আর দীর্ঘদিনের চলমান অভ্যাস।এই পরিবর্তনের সাথে বদলে যাছে সাংবাদিকতার সনাতনি ধারাও। পরিবেশ প্রতিবেশে ঘটছে অন্য্ রকম এক রূপান্তর। একজন অভিজ্ঞ সাংবাদিক এই রুপান্তর গুলোকে শুধু দেখেই শেষ করেন না, সে গুলোকে তিনি নীবিড় পর্যবেক্ষণেও রাখেন।

সাংবাদিতা একটি মহান পেশা্। যাঁরা এ পেশাকে পবিত্রতার সাথে গ্রহন করেছেন তাঁরা একে সমাজ পরিবর্তনের হাতিয়ার হিসাবেই মনে করেন। একজন সংবাদকর্মী কেবল সংবাদ পরিবেশনের মাঝে নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখলে তার কাজও সীমাবদ্ধতার মাঝে পড়ে থাকে। ফলে সমাজ যে পরিমানে এগিয়ে যাবার কথা সেভাবে এগুতে পারেনা। এই পরিস্থিতিতে একজন সংবাদকর্মীর কাজ হবে এসব ঘটনাকে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখা আর সে ঘটনাকে বিশ্লেষণের মাধ্যমে পরিবেশণ করা।

জ্ঞানবিজ্ঞানের উন্নয়নের সাথে সাথে প্রযুক্তিরও ব্যপক পরিবর্তন ঘটছে। তাই একজন সংবাদকর্মীকে প্রযুক্তি ব্যবহারেও দক্ষ হতে হবে। অতিসম্প্রতি ঘটে যাওয়া কয়টি ঘটনায় প্রযুক্তি যে ভাবে ব্যবহৃত হয়েছে তাতে এটি একটি শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। ফেসবুক টুইটার ইত্যাদি এখন আর বিনোদনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। নানান ধরনের ব্লগ, ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটতো রয়েছেই। এগুলো এখন একএকটি সংবাদ মাধ্যম হিসা্বেও আত্মপ্রকাশ করেছে। বিগত আমেরিকান নির্বাচনে ফেসবুক টুইটার ব্যপক ব্যবহৃত হয়েছে। সাম্প্রতিক কালে মধ্যপ্রাচ্যের দেশসমুহে যে গণঅভ্যুত্থান ঘটছে তাতেও এই মাধ্যম গুলোর ব্যপক প্রভাব পড়েছে। মানুষ আগের মত এখন আর কোনো খবরের জন্য সংবাদ পত্রের জন্য অপেক্ষা করেনা। দ্রুত খবরের জন্য সবাই এখন ইন্টারনেট এর আশ্রয় নেয়। বাংলাদেশের প্রায় সকল শীর্ষ সংবাদপত্র এখন প্রিন্ট কপির পাশাপাশি অনলাইন সংস্করণ প্রকাশ করছে। পাঠকও এখন প্রিন্ট মিডিয়া ছেড়ে অনলাইন মিডিয়ার দিকে বেশী বেশী ঝুকছে। বাংলাদেশের বেশ কয়টি অনলাইন পত্রিকা ইতোমধ্যে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অনলাইনে সবচেয়ে সুবিধা হলো তাতক্ষনিক সংবাদ পরিবেশন। এখন পাঠক যে কোনো সংবাদ দ্রুত পেতে অধীর আগ্রহে ইন্টারনেট এর আশ্রয় নেয়। আমদের গ্রামীণ সাংবাদিকতার পথিকৃত কাঙাল হরিনাথ তৃণমূল সাংবাদিকতার যে দিকদর্শন দিয়ে গেছেন প্রযুক্তির এ যুগে তা আরো বেশী কার্যকর হয়ে উঠবে। গ্রাম থেকে একটি সংবাদ পরিবেশন করতে কী পরিমান ঝক্কি ঝামেলা পোহাতে হয় তা একমাত্র ভুক্তভুগীরা জানেন। প্রযুক্তি ব্যবহার করে তা সহজেই মূহুর্তে বিশ্বের যে কোনো স্থানে ছড়িয়ে দেয়া যায়। গ্রাম সাংবাদিকতার আর এক দিকপাল মোনাজাত উদ্দিন কি কষ্ট করে কত জনের কাছে ধর্ণা দিয়ে ঢাকাতে পত্রিকা অফিসে সংবাদ পাঠাতেন তা এখন আর কল্পনাও করা যায় না।

এই উপমহাদেশে অনলাইন সাংবাদিকতার সবচেয়ে প্রকৃষ্ট উদাহরণ হলো আমদের পার্শবর্তী দেশ নেপাল। ভৌগোলিক অবস্থার কারণে সেখানে অনলাইন সাংবাদিকতা প্রচুর উন্নতি লাভ করেছে। নেপালের রাজতন্ত্র বিরোধী আন্দোলনে অনলাইন সাংবাদিকতা ব্যপক কার্যকরি ভূমিকা রেখেছিলো। সে সময় নেপাল সরকার সংবাদ পত্র নিষিদ্ধ করেছিলো। সেই সাথে নিষিদ্ধ ছিলো আনলাইনে সংবাদ পরিবেশনও। কিন্তু সংবাদকর্মীরা তাতে দমে যায় নি। তারা আন্দোলনের গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ গুলোকে টুকরো টুকরো করে সেন্সারশীপ কে ফাঁকি দিয়ে ঠিক সময়ে ঠিক স্থানে পরিবেশন করতে পেরেছিলো। এতে সংবাদ পরিবেশনের ক্লাসিক দিকটি ফুটে উঠেছে। বর্তমান বিশ্বে বিভিন্ন কর্পোরেট বহুজাতিক গোষ্ঠী এবং বিশেষ বিশেষ মহল সাংবাদিকতাকে নিজেদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে নানান অপকৌশলে লিপ্ত। কতিপয় সাংবাদিক তাদের ফাঁদে আটকা পড়েও গেছেন। তাদের হয়তো সেখান থেকে বেরিয়ে আসার আর পথ নেই। কিন্তু সৎ সাংবাদিকতাকে কেউ কোনদিন শিকলে আবদ্ধ করে রাখতে পারবেনা। সাংবাদিকতাও আজ নানান মতে নানান ভাবে বিভক্ত। কিন্তু সাংবাদি্কতায় তো কোনো দল মত থাকতে পারেনা। নানান চড়াই উতরাই পেরিয়ে নানান বন্ধুর পথে এঁকে বেঁকে সাংবাদিকতা তার পথের ঠিকানা সে নিজে ঠিকই চিনে নিবে।

‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গড়ার ঘোষনার মধ্যদিয়ে আমাদের দেশটি এখন নতুন এক দিগন্তে প্রবেশ করেছে। ইতোমধ্যে তার কিছু ফল আমরা পেতে শুরু করেছি। দেশের সকল ইউনিয়ন পরিষদে তথ্যকেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে। কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট সংযোগ সহ তথ্য প্রযুক্তির সকল সুবিধা সেখানে রয়েছে। এই তথ্যকেন্দ্রকে ব্যবহার করে স্থানীয় সাংবাদিকরা গ্রামে বসেই স্থানীয় গুরুত্বপুর্ণ সংবাদ পরিবেশন করতে পারবেন।

অনলাইন সাংবাদিকতার সবচেয়ে বড় ঝুঁকি হলো এর অপব্যবহার। এর ফলে হলুদ সাংবাদিকতার ব্যপক প্রসারও ঘটতে পারে। তার উপর নানান চক্র ও গোষ্ঠি এর মাধ্যমে নানান অপরাধ করে যাছে। ‘সাইবার ক্রাইম’ হিসাবে এটি আপরাধ জগতে নতুন মাত্রা পেয়েছে। এর জন্য আমাদের দেশে এখনো সুনির্দ্দিষ্ট কোনো আইন বা নীতিমালা রচিত হয়নি। বাংলাদেশ যখন ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করেছে তখন এর জন্য সুনির্দ্দিষ্ট নীতিমালা এবং আইন প্রণয়ন করা অতি জরুরি হয়ে পড়েছে। সকল নীতিমালা ও আইন মেনে একজন সংবাদকর্মী সংবাদ পরিবেশন করবেন এটাই সকলে আশা করেন। এর জন্য যে কোনো পরিস্থিতিতে একজন সংবাদকর্মীকে খুব নিষ্ঠা ও সতর্কতার সাথে কাজ করতে হবে। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে আগামীর সাংবাদিকতার চিত্র হয়ত বর্তমানের মত থাকবেনা। তখন এক একজন সংবাদকর্মী এক একটি প্রতিষ্ঠানে পরিনত হবে্ন। সকল পরিস্থিতিতে তখন সংবাদকর্মীকেই সবার আগে দায়িত্ব নিতে হবে। একজন দক্ষ ও প্রশিক্ষিত সংবাদ কর্মীই পারেন আগামী পথিবীকে আরো দূরে এগিয়ে নিয়ে যেতে। আমরা আগামী পৃথিবীর অপেক্ষায় থাকলাম।

মাহমুদুল হক ফয়েজ, সাংবাদিক, গবেষক।

e-mail: mhfoez@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এসএসসিতে পাসের হার ৭৭.৭৭%

Share চলতি বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এতে ১০ শিক্ষা বোর্ডে গড়ে পাসের হার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৬২৯ জন। রবিবার ...

লোটাস কামালের দুর্গে বিএনপির দুই ভূঁইয়ার দ্বন্দ্ব!

Share নাঙ্গলকোট উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১৬টি ইউনিয়ন, নবগঠিত লালমাই উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার ছয়টি ইউনিয়ন নিয়ে কুমিল্লা-১০ আসন। আয়তন ও জনসংখ্যার দিক থেকে দেশের অন্যতম বড় আসন এটি। আসনের প্রতিটি ...