আজ : সোমবার, ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জুলাই, ২০১৮ ইং, ৯ই জিলক্বদ, ১৪৩৯ হিজরী, সকাল ১০:০৯,

স্কুলছাত্রী কনিকা হত্যায় যুবকের ফাঁসির রায়

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায় স্কুলছাত্রী কনিকা রানী ঘোষকে কুপিয়ে হত্যার মামলায় মাদকাসক্ত যুবক আব্দুল মালেকের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত।
rap
বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় শিশু আদালতের বিচারক চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. জিয়াউর রহমান চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে একই সঙ্গে আসামিকে ৩২৬ ধারায় ১০ বছর কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা, ৩০৭ ধারায় ১০ বছর কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো তিন মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে। মৃত্যুদণ্ড কার্যকর না হওয়া পর্যন্ত এ দণ্ড চলতে থাকবে বলে আদালতের রায়ে বলা হয়।

সরকারি কৌঁসুলি জবদুল হক জানান, গত বছরের ২৭ মে সকালের দিকে মহিপুর থেকে প্রাইভেট পড়ে কনিকা ও তার তিন সহপাঠী মরিয়ম খাতুন, তানজিমা তাহসিন ও তারিন আফরোজ বাড়ি ফিরছিল। পথে মাদকাসক্ত বখাটে যুবক দিয়াড় ধাইনগর গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে আব্দুল মালেক হাঁসুয়া নিয়ে পেছন থেকে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে সবাই মারাত্মকভাবে আহত হয়। তারপর সদর হাসপাতাল নেয়ার পথে কনিকা মারা যায়। কনিকার মা অঞ্জলি রানী ঘোষ বাদী হয়ে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

তিনি আরো জানান, চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার প্রথম তদন্তকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত হন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহমুদুর রশিদ, পরে জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার ওয়ারেশ আলী মিয়াকে তদন্তভার দেয়া হয়। তিনি তদন্ত শেষে আসামি আব্দুল মালেকের বিরুদ্ধে আদালতে গত বছরের ৭ অক্টোবর অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

নিহত কনিকা রানী ও তার তিন সহপাঠী শিশু হওয়ায় এর মামলার বিচারকার্য শিশু আদালতে গত বছরের ২৩ নভেম্বর শুরু হয়। এ মামলায় আদালতে ২১ সাক্ষী উপস্থাপন করা হয়। এ বছরের ২৬ জানুয়ারি উভয় পক্ষের যুক্তিকর্ত উপস্থাপন শেষ হয়।

আদালত রায়ের পর নিহত কণিকার মা অঞ্জলি রানী ঘোষ কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি বলেন, এ রায়ে আমি সন্তুষ্ট। আমার মেয়ের আত্মাও শান্তি পাবে।

তিনি রায় দ্রুত কার্যকর করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

কণিকার সহপাঠীরা প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে বলে, সেদিনের সেই দুঃসহ স্মৃতি তাদের প্রতিমুহূর্তেই তাড়া করে ফেরে। ঘুমের ঘোরে ভয় পেয়ে বহু রাতে চমকে উঠেছে তারা। কণিকা থাকলে একসঙ্গেই আগামীকাল বৃহস্পতিবার তারা এসএসসি পরীক্ষা দিতে যেত। সে ছিল তাদের মধ্যে সবচেয়ে মেধাবী। এ রায়ে তাদের মনের কষ্ট কিছুটা হলেও লাঘব হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কেউ ট্রেনের টিকিট না পেয়ে ফিরে যাবেন না: রেলমন্ত্রী

Share স্টাফ রিপোর্টার: পর্যাপ্ত টি‌কিট আছে এবার। কেউ না পেয়ে ফিরে যাবেন না। এমনটাই জানিয়েছেন ঈদে ট্রেন যাত্রায় টিকিট সংগ্রহে মানুষের উপচে পড়া ভিড় দেখে রেলমন্ত্রী মু‌জিবুল হক। তি‌নি জানান, কমলাপু‌র রেলস্টেশন থেকে দৈ‌নিক অর্ধলাখ ...

রাজশাহী শহর বিপদমুক্ত নয়

Share পদ্মা: এবারের বানে ভেসে গেছে পদ্মার বুকে জেগে ওঠা চর। চারদিকে শুধু পানি আর পানি। রাজশাহী শহর বিপদমুক্ত নয়, পানি বাড়লে যেকোনো সময় ডুবে যেতে পারে। ভরা পদ্মায় সূর্যাস্ত দেখে মনে হতেই পারে এটি ...