আজ : সোমবার, ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, ২রা রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী, সকাল ৬:৪৯,

বরিশালে ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

untitled-23_231992 বরিশাল ব্যুরো: ভরা মৌসুমে বরিশালসহ দক্ষিণের মোকামগুলোতে ছিল ইলিশের তীব্র আকাল। হতাশ জেলেরা সৃষ্টিকর্তার করুণা কামনা করছিলেন ইলিশের জন্য। অতঃপর ধরা পড়তে শুরু করেছে ইলিশ। জেলে ও ইলিশ ব্যবসায়ীরা জানান, গভীর বঙ্গোপসাগরে এবং দক্ষিণের নদ-নদীগুলোয় এক সপ্তাহ ধরে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়ছে। তবে ভারতে বৈধভাবে ইলিশ রফতানি বন্ধ থাকায় চোরাইপথে ব্যাপকভাবে পাচার হওয়ার অভিযোগ করেছেন বরিশাল, পাথরঘাটা ও মহিপুরের অধিকাংশ ইলিশ ব্যবসায়ী। তাদের অভিযোগ, যশোর-সাতক্ষীরার একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট দক্ষিণের কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর সঙ্গে যোগসাজশ করে ভারতে পাচার করছে ইলিশ।
বরগুনার পাথরঘাটা পাইকারি ইলিশ মোকামের আড়তদার আলম মোল্লা জানান, চলতি সপ্তাহে তার মালিকানাধীন চারটি ট্রলারে ধরা পড়া ইলিশ বিক্রি করেছেন ৯৫ লাখ টাকায়। প্রতিদিনই গভীর সমুদ্র থেকে ইলিশবোঝাই ট্রলার ফিরছে পাথরঘাটার বিএফডিসি ঘাটে। একেকটি ট্রলারের মাছ বিক্রি হচ্ছে তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকায়। তবে বৈরী আবহাওয়ার কারণে পাথরঘাটা এবং পটুয়াখালীর মহিপুর মৎস্য মোকামের অধিকাংশ ট্রলার সাগরে যেতে পারছে না। উত্তাল ঢেউয়ের তোড়ে টিকতে না পেরে গতকাল শনিবার বিকেলে পাথরঘাটায় ফিরেছে এফবি তানিশা, এফবি তন্ময় ও এফবি আলম নামক তিনটি ট্রলার। এফবি তানিশার প্রধান মাঝি মিজান মলি্লক জানান, গভীর সাগরে রূপালি ইলিশের ছড়াছড়ি হলেও উত্তাল ঢেউয়ের তোড়ে তারা সাগরে টিকতে পারছিলেন না। পাথরঘাটা মৎস্য বন্দরে আসা ইলিশবোঝাই এফবি নার্গিস, এফবি হাফিজ ও এফবি নাসরিনের মালিক চট্টগ্রামের সিদ্দিক মাঝি জানান, তিনি তিনটি ট্রলারের ইলিশ ২০ লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন। পটুয়াখালীর সর্ব দক্ষিণের ইলিশ মোকাম মহিপুর মৎস্য ট্রলারচালক সমিতির নুরু মাঝি সমকালকে জানান, গভীর সমুদ্রে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়ছে। সাগর উত্তাল হলেও আলীপুর-মহিপুর এলাকার অধিকাংশ ট্রলার এখনও গভীর সমুদ্রে ইলিশ শিকারে ব্যস্ত। ভোলার ঢালচর থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দক্ষিণে ইলিশ শিকাররত ট্রলার মাঝিদের বক্তব্যের বরাত দিয়ে বরিশাল ইলিশ মোকামের মৎস্য আড়তদার অজিত দাস মনু জানান, ভোলার চরফ্যাশন, লালমোহন, মনপুরা, মেহেন্দীগঞ্জের শ্রীপুর এবং বরিশাল সদরের চন্দ্রমোহন-সংলগ্ন মেঘনা, তেঁতুলিয়া, কালাবদর ও আড়িয়াল খাঁ নদ-নদী থেকে ইলিশ আসতে শুরু করেছে। এসব ইলিশের সাইজও ভালো। গত এক সপ্তাহে মণপ্রতি মাছের দাম কমেছে সাইজ অনুযায়ী ১০ থেকে ৮ হাজার টাকা। অজিত দাস আরও জানান, সাগর শান্ত হলে এবং উজানের নদ-নদী থেকে যখন মিঠা পানি ভাটির দিকে নামতে শুরু করবে, তখন আরও জমজমাট হয়ে উঠবে ইলিশ মোকামগুলো। সাধারণ ভোক্তারাও তখন ইলিশের নাগাল পাবেন সাধ্যের দামে।

বরিশাল ও পাথরঘাটার অন্যতম ইলিশ ব্যবসায়ী বরিশাল ফিশিংয়ের স্বত্বাধিকারী খান হাবিব জানান, জেলেরা ঝুঁকি নিয়েই অশান্ত সাগরে ইলিশ শিকারে যাচ্ছেন। গড়ে প্রতিদিন পাথরঘাটায় প্রায় দুই থেকে চার হাজার মণ ইলিশ আসছে। বরিশাল ইলিশ মোকামের আড়তদার জহির সিকদার জানান, এক কেজি ওজনের ইলিশ ৪০ হাজার টাকা মণ দরে অর্থাৎ প্রতি কেজি এক হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, যা এক সপ্তাহ আগেও ৫০ হাজার টাকা মণ দরে বিক্রি হতো। ৬০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৩২ হাজার টাকা মণ দরে, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৪০ হাজার টাকা প্রতি মণ।

বরিশাল মৎস্য অধিদপ্তরের জেলা কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস দৈনিক সোনালী দেশ-কে বলেন, এক সপ্তাহ ধরেই ইলিশের আমদানি বেড়েছে। দামও সহনীয় পর্যায়ে আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

অজগর দিয়ে শরীর ম্যাসাজ!

Share চেহারা সুন্দর রাখতে আমরা কত কিছুই না করি! ত্বককে আরাম দিতে মাসে এক বার হলেও স্পা, নানা রকম উপাদেয় দিয়ে স্বাস্থ্যকর ম্যাসাজ করে থাকি। কখনো কি শুনেছেন, একটা অাস্ত অজগর দিয়ে শরীর ম্যাসাজ করার কথা? ঠিক ...

অনাথ, অসহায়ের শাসনকর্তা হতে চাই: ইমরান

Share ভোটগণনায় ইমরানের ক্ষমতায় আসা প্রায় নিশ্চিত। শেষ পর্যন্ত ১৩৭-এর ম্যাজিক ফিগার ছুঁতে না পারলেও বিলাবল জারদারির পিপিপি-র সঙ্গে জোটের রাস্তাও প্রায় পাকা। ফলে পাক প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারে বসা এখন শুধুই সময়ের অপেক্ষা বলেই মনে করছেন ...